সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০১:৪৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
বাইশারীতে বর্তমান ও সাবেক চেয়ারম্যান অনুসারীদের হামলার অভিযোগ উখিয়া অনলাইন প্রেসক্লাব নির্বাচনে বিভিন্ন পদে ১৮জনের মনোনয়ন সংগ্রহ উখিয়া অনলাইন প্রেসক্লাব’র নির্বাচন : জেলাজুড়ে জল্পনা-কল্পনা উখিয়ার লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অপরাধ জগৎ নিয়ন্ত্রণে যারা ক্যাম্পে কথিত আরসা সদস্যকে গুলি করে হত্যা বৈশ্বিক তহবিল ঘাটতির সাথে খাপ খাইয়ে নিতে সমন্বিত পরিকল্পনা অতীব জরুরী উখিয়ার পূর্বরত্না থেকে গভীর রাতে সংঘবদ্ধ ১৮ রোহিঙ্গা আটক প্রকাশিত সংবাদ প্রসঙ্গে ফুয়াদ আল-খতীব হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বক্তব্য উখিয়া কলেজের গভর্ণিং বডির শিক্ষক প্রতিনিধি নির্বাচন সম্পন্ন: অধ্যাপক তহিদ ও শাহআলম নির্বাচিত রোহিঙ্গা হেড মাঝি খুনের ঘটনায় ৩জন আসামীকে গ্রেফতার করেছে এপিবিএন-৮

ইনানী সমুদ্র সৈকতে অপরিকল্পিত জেটি নির্মান পরিবেশের জন্য ঝুঁকি

নিজস্ব প্রতিবেদক: / ২২৫ বার
আপডেট রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:৪১ পূর্বাহ্ন

পরিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকার ইসিএ জোনে পরিবেশগত ঝুঁকি ও প্রভাবের বাস্তব সমীক্ষা না করে জেটি করার মত এধরনের হুজুগে সিদ্ধা‌ন্তে অপরিকল্পিত স্থাপনা পরিবেশগত সংকট সৃষ্টি করবে। প্রাকৃতিক ভাবে সৃষ্টি পাথুরে বীচের ইকোসিস্টেম ও গঠন মারাত্মক হুমকির মুখে ফেলবে।

ককসবাজার সমুদ্র সৈকতের ডায়াবেটিস পয়েন্ট, কবিতা চত্বর ও শৈবাল পয়েন্ট এবং লাবনী পয়েন্টের ভাঙ্গন ও ঝাউবাগান বিলীন হয়ে যাওয়া তার বর্তমান উৎকৃষ্ট উদাহারন।

ককসবাজার সমুদ্র সৈকতের ৮৫ কিঃমিঃ এলাকার বিভিন্ন অংশের বেশিরভাগ জমি সরকারে বিভিন্ন সংস্থা ও বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানগুলো গত কয়েক বছরে, তখন সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তর গুলোকে বার বার সতর্ক করা সত্ত্বেও কোন পদক্ষেপ গ্রহন করেনি। স্থানীয় ও জাতীয় গণমাধ্যমগুলো চুপ ছিল গুম হবার ভয়ে।

এখন তারা তাদের স্ব স্ব জমির বিপরীতে সমুদ্র সৈকতের ইসিএ জোনে যা খুশি করবে, কতজন কে বাধা দিবেন, ঠেকাবেন, যেখানে টাকা দিলে জাতীয় স্বার্থ বিক্রি করতে তিল পরিমান কার্পন্য করেনা ! তবে তাই বলে তাদের যা মনচায় তারা করতে পারেনা।

সরকারের দায়িত্বশীল সংস্থার চত্রছায়ায় যদি ব্যাক্তি স্বার্থে আইন অমান্য করে তবে সাধারন মানুষের উপরে সে আইনের প্রয়োগ অন্যায় কতটা যুক্তিযুক্ত ! তাই এখন দেখার বিষয় সরকার ইসিএ রক্ষায় কি পদক্ষেপ গ্রহন করে।

পূর্বে ক্ষমতার দম্ভে সী-গাল হোটেল ও কাঠের জেটি করেছিল, কিন্তু আমাদের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে সেদিন তাদের জেটি ভেঙ্গে ফেলতে হয়েছে।
ডায়াবেটিক পয়েন্টে সেন্টমার্টিনগামী জাহাজের যাত্রী উটানামার জন্য জেটি করেছিল কিন্তু তাও অপসারন করতে হয়েছে আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে ।
সুতরাং রয়েল টিউলিপ কেও তা সরিয়ে নিতে বাধ্য করা হবে যে কোন মূল্যে।

তবে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ ও পরিবেশ আইন এখন অনেকটা ষ্টাব্লিশ তবে কেন কার ইশারাতে, এভাবে একটি প্রতিষ্টান গায়ের জোরে ইসিএ জোনে এভাবে জিওব্যাগ দিয়ে কৃত্রিম জেটি করে ইনানী সমুদ্র সৈকতের পাথুরে বীচের পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য ধ্বংস করে মূল সৌন্দর্য্য বালির নীচে চাপা দিয়ে নিজেদের স্বার্থে এভাবে জেটি করা অন্যায়। এটি তো একদিনে হয়নি, কোথায় প্রশাসন ও সরকারী দপ্তরগুলো ? নাকি তাদের সমস্ত আইন শুধু গরীব মানুষের জন্য প্রয়োগ হয় ?


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: