মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৫:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
উখিয়ার ক্যাম্প থেকে অস্ত্রসহ ৬ রোহিঙ্গা গ্রেফতার নুরুল হুদা গ্রেপ্তার বাইশারীতে বর্তমান ও সাবেক চেয়ারম্যান অনুসারীদের হামলার অভিযোগ উখিয়া অনলাইন প্রেসক্লাব নির্বাচনে বিভিন্ন পদে ১৮জনের মনোনয়ন সংগ্রহ উখিয়া অনলাইন প্রেসক্লাব’র নির্বাচন : জেলাজুড়ে জল্পনা-কল্পনা উখিয়ার লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অপরাধ জগৎ নিয়ন্ত্রণে যারা ক্যাম্পে কথিত আরসা সদস্যকে গুলি করে হত্যা বৈশ্বিক তহবিল ঘাটতির সাথে খাপ খাইয়ে নিতে সমন্বিত পরিকল্পনা অতীব জরুরী উখিয়ার পূর্বরত্না থেকে গভীর রাতে সংঘবদ্ধ ১৮ রোহিঙ্গা আটক প্রকাশিত সংবাদ প্রসঙ্গে ফুয়াদ আল-খতীব হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বক্তব্য

ঘুমধুমে ধানের চারার সাথে এ কেমন শত্রুতা!

নিজস্ব প্রতিবেদন / ১৮৭ বার
আপডেট শুক্রবার, ২১ আগস্ট, ২০২০, ২:৪০ অপরাহ্ন

উখিয়ার পাশ্ববর্তী নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের উত্তর ঘুমধুম মগঘাট এলাকায় সদ্য রোপিত আমন ধানের চারা’র সাথে এ কেমন শত্রুতা! ৮০ শতক জমির ধানের চারা উপড়ে ফেলেছে প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীরা। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগীরা ঘুমধুম পুলিশ ফাঁড়িতে অভিযোগ দায়ের করার প্রস্তুতি নিয়েছে। গত বৃহস্পতিবার রাতে এই ঘটনাটি ঘটে।

অভিযোগের সুত্রে জানা যায়, গত দেড় যুগ আগে উত্তর ঘুমধুম মগঘাট এলাকার বাসিন্দা মাস্টার মোঃ শফি ৮০ শতক জমি ক্রয় করে একই এলাকার এক ব্যক্তি থেকে । উক্ত জমির বিরোধের জের ধরে সন্ত্রাসীরা ২০১৩সালে মাস্টার মোঃ শফিকে হত্যা করে। কিছুদিন মামলার কারনে প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীরা দুরে সরে থাকলেও বর্তমানে জামিনে এসে আবারো জায়গাটি দখলে নেওয়ার চেষ্টা চালিয়ে আসছে। যার ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার রাতে মোঃ শামসুল আলম, শাহজাহান, শাহ আলম,মোঃ হানিফ, হামিদুল, মিজানুর রহমান, হেলাল উদ্দিনসহ ১২/১৫জন সন্ত্রাসীর নেতৃত্বে ৮০ শতক জমির সদ্য রোপিত আমন চারা উপড়ে ফেলে। এ নিয়ে প্রতিবাদ করতে গেলে উল্টো মোঃ শফির পরিবারকে হত্যাসহ বিভিন্ন দিয়ে যাচ্ছে।
অভিযোগের বাদী মাস্টার শফির ভাতিজা মোঃ জামাল উদ্দিন জানান, উক্ত সন্ত্রাসীরা আমার চাচাকে প্রকাশ্যে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করেছে।
এখন আমাদেরকেও হত্যা করার হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। আমার চাচ’র ছোট ২জন ছেলে/মেয়ে রয়েছে, তারাও এখন মানবেতর দিন যাপন করছে। তাদের নিকট থেকে লাগিয়ত নিয়ে অনেক কষ্টের ৪০ হাজার টাকা ব্যয় করে ৮০ শতক জমির ধান চারা রোপন করেছিলাম। তা নষ্ট করে দিয়েছে প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীরা। বিষয়টি আমি তাৎক্ষনিকতভাবে প্রশাসনকে জানিয়েছি। লিখিত অভিযোগ দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছি।

এ বিষয়ে জানার জন্য ঘুমধুম তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ দেলোয়ার হোসেনের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করেও মুঠোফোনে সংযোগ না যাওয়ায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: