মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৬:২৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
বাইশারীতে বর্তমান ও সাবেক চেয়ারম্যান অনুসারীদের হামলার অভিযোগ উখিয়া অনলাইন প্রেসক্লাব নির্বাচনে বিভিন্ন পদে ১৮জনের মনোনয়ন সংগ্রহ উখিয়া অনলাইন প্রেসক্লাব’র নির্বাচন : জেলাজুড়ে জল্পনা-কল্পনা উখিয়ার লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অপরাধ জগৎ নিয়ন্ত্রণে যারা ক্যাম্পে কথিত আরসা সদস্যকে গুলি করে হত্যা বৈশ্বিক তহবিল ঘাটতির সাথে খাপ খাইয়ে নিতে সমন্বিত পরিকল্পনা অতীব জরুরী উখিয়ার পূর্বরত্না থেকে গভীর রাতে সংঘবদ্ধ ১৮ রোহিঙ্গা আটক প্রকাশিত সংবাদ প্রসঙ্গে ফুয়াদ আল-খতীব হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বক্তব্য উখিয়া কলেজের গভর্ণিং বডির শিক্ষক প্রতিনিধি নির্বাচন সম্পন্ন: অধ্যাপক তহিদ ও শাহআলম নির্বাচিত রোহিঙ্গা হেড মাঝি খুনের ঘটনায় ৩জন আসামীকে গ্রেফতার করেছে এপিবিএন-৮

করোনায় কক্সবাজারে প্রথম পুলিশের মৃত্যু, সহকর্মীর আবেগঘন পোস্ট

জেলা প্রতিনিধি: / ৩১৯ বার
আপডেট বৃহস্পতিবার, ১৬ জুলাই, ২০২০, ১:০২ অপরাহ্ন

দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কক্সবাজার জেলা পুলিশের প্রথম কোনো সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। মৃত পুলিশ সদস্যের নাম ছোটন দেব (২৯)। তিনি কক্সবাজার জেলা পুলিশের কনস্টেবল ছিলেন।

ছোটন দেব চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার বাতাজুড়ি ধামদর হাট এলাকার সাধন দেবের ছেলে। বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) ভোরে ঢাকার রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। বিষয়টি জানিয়েছেন কক্সবাজারের পুলিশ সুপার (এসপি) এবিএম মাসুদ হোসেন।

পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন বলেন, ছোটন দেব দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে ১০ জুন করোনা ‘পজিটিভ’ হন। পরে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল। সেখানে গত এক সপ্তাহ ধরে তাকে আইসিইউতে রাখা হয়েছিল। সেখানে বৃহস্পতিবার ভোরে তিনি মারা যান।

এসপি আরও বলেন, কক্সবাজার জেলা পুলিশের প্রথম সদস্য হিসেবে করোনায় মৃত্যুবরণ করলেন ছোটন দেব। ছোটন ছাড়াও কক্সবাজার জেলা পুলিশের আরও ১৩৪ জন বিভিন্ন পদ মর্যাদার পুলিশ সদস্য গত চার মাসে মানবিক সেবা দিতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। কনস্টেবল ছোটনসহ এ পর্যন্ত পুলিশের ৫১ জন সদস্য করোনায় মৃত্যুবরণ করলেন।

ছোটনের মৃত্যু নিয়ে কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. ইকবাল হোসাইন তার ফেসবুকে লিখেছেন, ‘সহকর্মীর চিরবিদায়। মাত্র আট বছরের চাকরি, ২৯ বছর বয়স। ১৩ মাসের এক ফুটফুটে সন্তান রয়েছে তার। একজন সহকর্মী হিসেবে যতটুকু কষ্ট হচ্ছে তার চেয়ে বেশি অসহনীয় কষ্ট হচ্ছে আমিও যে এক শিশুর বাবা। মৃত্যু কেন এত কষ্ট দিয়ে যায়? প্রশ্ন করার সাহস, শক্তি, সামর্থ্য কোনোটিই নেই তোমার কাছে। একমাত্র তুমিই জানো কোনটা ভালো, কখন ভালো, কিভাবে ভালো। উত্তর চাই না; শক্তি চাই। এত শোক সহ্য করার শক্তি দিন দিন হারিয়ে ফেলছি আল্লাহ।

জাগো নিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো সংবাদ

এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: