বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ১১:৩৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :

কারিতাসের বিরুদ্ধে স্বজনপ্রীতি ও কর্মীদের বেতন নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ

রিপোর্টার / ২২৩ বার
আপডেট বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ১১:৩৮ অপরাহ্ন

দূর্নীতি,স্বজনপ্রীতি ও কর্মীদের বেতন প্রদানে অনিয়মের নানা অভিযোগ ওঠেছে বেসরকারি উন্নয়ন মূলক সংস্থা (এনজিও) কারিতাসের বিরুদ্ধে।নিয়ম বহির্ভূত ভাবে কর্মীদের চাকরি চ্যুত করা, টাকার বিনিময়ে ভূঁয়া সার্টিফিকেট ধারীদের চাকরী দেওয়া ও কর্মীদের বেতন নিয়ে অনিয়মের নানা অভিযোগ করেছেন নিয়ম বহির্ভূত ভাবে চাকরীচ্যুত হওয়া কারিতাসের আশ্রয়ণ (শেল্টার) প্রকল্পের কর্মীরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চাকরীচ্যুত হওয়া এক কর্মী বলেন, রোহিঙ্গা শিবিরের ৪,১৩,১৯ নং ক্যাম্পে কর্মরত আশ্রয়ণ প্রকল্পের ২৬ জন কর্মীদেরকে নিয়ম বহির্ভূত ভাবে চাকরী চ্যুত করা হয়েছে।কর্মরত সবাই একই প্রকল্পে কাজ করা সত্বেও কোন ধরনের যোগ্যতার ভিত্তিতে নিয়োগ পরীক্ষা ছাড়া উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের স্বজন প্রীতি ও টাকার বিনিময়ে তাদের পরিচিত কর্মীদের বহাল রেখে বাকি ২৬ জনকে চাকরী চ্যুত করা হয়।আবার স্বজন প্রীতির মাধ্যমে বহাল থাকা অনেক কর্মী ভুঁয়া সার্টিফিকেট ধারী এবং অতীতেও টাকার বিনিময়ে ভূঁয়া সার্টিফিকেটে চাকরী দিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে এই সংস্থার উর্ধ্বতন অনেক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে।এই রকম দূর্নীতির গুঞ্জন চারদিকে ছড়িয়ে পড়লে পরবর্তীতে তাদেরকে চাকরী থেকে বাদ দেওয়া হয়।এ ছাড়া কর্মীদের এপ্রিল মাসের বেতন প্রদানে ও করেছেন নানা অনিয়ম।চাকরীচ্যুত কর্মীদের বাদ দিয়ে বাকিদের কে এপ্রিল মাসের বেতন প্রদান করা হয়।আবার চাকরীচ্যুত হওয়া কিছু কর্মীরা প্রতিবাদ করলে তাদের মধ্যে কিছু কিছু কর্মীদেরকে গোপনে বেতন প্রদান করা হয় বলে জানা যায়।

এ বিষয়ে কারিতাসের মানব সম্পদ বিভাগের কর্মকতা আসিফ মাহমুদের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সংস্থার সাথে কর্মীদের নির্ধারিত চুক্তিবদ্ধের মেয়াদ শেষ হওয়ায় আশ্রয়ন প্রকল্পের আওতায় কাজ করা কর্মীদের চাকরীচ্যুত হয়।কাউকে অনিয়ম করে চাকরীতে বহাল রাখা হয় নাই।যাদেরকে বেতন প্রদান করা হয়েছে তারা আশ্রয়ন প্রকল্পের নই।ভুঁয়া সার্টিফিকেট ধারী যে সব কর্মী ছিল তাদের সবাইকে যাচাই করে বাদ দেওয়া হয়েছে।এ ছাড়া ভবিষ্যতেও কর্মরত কোন কর্মীর সার্টিফিকেট ভুঁয়া প্রমানিত হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিয়ে চাকরী থেকে বাদ দেওয়া হবে বলে জানান কারিতাসের এই কর্মকর্তা।

উখিয়া উপজেলা নির্বাহি অফিসার নিকারুজ্জামান চৌধুরী বলেন, কোন ভুক্তভোগী এনিজিও সংস্থার কোন কর্মকর্তার অনিয়মের রোষানলে পতিত হলে তদন্ত সাপেক্ষে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রত্যেক এনজিও সংস্থার একটা নির্ধারিত প্রশাসনিক বিভাগ থাকে।তারা তাদের প্রশাসনিক নিয়ম অনুযায়ী কর্মী নিয়োগ করেন।এ ছাড়া কোন ভুক্তভোগী কোন এনজিও সংস্থার কর্মকর্তাদের অনিয়মের বিষয়ে লিখিত অভিযোগ করলে তখন তদন্ত সাপেক্ষে বিষয়টির যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: