শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ০৫:১৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
উখিয়া প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন উখিয়া প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন রামুতে রাতের আধারে চুরি করতে গিয়ে জনতার পিঠুনিতে নিহত ১ ভাসানচরে সরালেও রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারেই ফিরতে হবে উখিয়ায় রোহিঙ্গা হেডমাঝি আজিজ ইয়াবাসহ আটক রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তরের সিদ্ধান্তে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর রামুতে চতুর্থ শ্রেনীতে পড়ুয়া মাদ্রাসা ছাত্রীর বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেন ইউএনও প্রণয় চাকমা রোহিঙ্গাদের জন্য দেশের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে: ওবায়দুল কাদের 1,642 Rohingyas have started for Bhasan Char from Chattogram হিমছড়ি পাহাড়ের সিঁড়ি থেকে পড়ে পর্যটকের মৃত্যু

আম্পান: ‘আমাগির খাওয়ার থালও রাখি যায়নি’

ডেস্ক নিউজ:: / ১৬৫ বার
আপডেট শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ০৫:১৩ অপরাহ্ন

ঘূর্ণিঝড় আম্পানে লণ্ডভণ্ড খুলনার কয়রা উপজেলার একটি পরিবারের বসতভিটা – এএফপি

‘ঘূর্ণিঝড় আম্পান সব ভাসায় নিয়ে গেছে। আমাগির খাওয়ার থালও রাখি যায়নি। বানের সাথে এখন আমাগির বাস করতি হতিছে। সবখানে নদীর জল। রান্না করার জো নেই। শেখের বেটিরে (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) বলতিছি, আমাগির নদীর বাঁধ একটু বান্দি দাও। ঝড়ে যেন আর এমন সর্বনাশ করতি না পারে।’ আম্পানে লণ্ডভণ্ড হয়ে যাওয়া সাতক্ষীরা উপকূলবর্তী আশাশুনি উপজেলার প্রতাপনগর এলাকার সত্তরোর্ধ্ব দিলীপ কুমার বাছাড় এভাবেই আকুতি জানান। আম্পানের ভয়াল থাবায় কপোতাক্ষ তীরবর্তী প্রতাপনগর ইউনিয়নের ১৭টি গ্রামের বাসিন্দারের দিলীপ কুমার বাছিড়ের মতো দশা। কারণ, বাঁধ ভেঙে এসব গ্রামের ওপর দিয়ে এখন বয়ে যাচ্ছে জোয়ার-ভাটা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, খাবার ও সুপেয় পানির খোঁজে গ্রাম থেকে গ্রামে ছুটছে দুর্গত এলাকার মানুষ। আশ্রয়ের জায়গাটুকুও নেই। শ্রিউলা ইউনিয়নের বাঁধ ভেঙে কয়েক হাজার মানুষের ঘরে কোমরপানি। জোয়ারের পানি হু-হু করে বাড়ছে। পানি যাচ্ছে সড়কের ওপর দিয়ে। অনেকে খেয়ে না-খেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে।

সাতক্ষীরা জেলা শহর থেকে আনুমানিক ৪৫ কিলোমিটার ভেতরে প্রতাপনগর ইউনিয়ন। এখন জোয়ারের সময় মূল রাস্তাটিও পানির নিচে তলিয়ে যায়। গ্রামের বাসিন্দারা রাস্তার উঁচু বাজারগুলোতে আশ্রয় নিয়েছেন। কিন্তু মূল রাস্তা থেকে একটু ভেতরে যাদের বাড়ি, তাদের দুর্দশার শেষ নেই। স্থানীয়
সাইক্লোন শেল্টারে কিছু মানুষ আশ্রয় নিয়েছে।

গাবুরা গ্রামের মাজেদ আলী মাস্টার বলেন, ‘একদিকে করোনা মহামারি, অন্যদিকে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের তাণ্ডব। বাঁধ ভেঙে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে এলাকার হাজার হাজার মানুষ।’

বেড়িবাঁধ ভেঙে শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালিনী, পদ্মপুকুর, গাবুরা ইউনিয়নের কয়েক লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। নদী এখনও উত্তল। জোয়ারের পানিতে মুন্সীগঞ্জ-নীলডুমুর সড়ক তলিয়ে যাচ্ছে। বসতবাড়ি পানিতে ডুবে থাকায় দুর্গত এলাকায় রান্না-খাওয়া প্রায় বন্ধ। গবাদি পশু ও হাঁস-মুরগি পানিতে ডুবে মারা গেছে। জোয়ার-ভাটার কারণে প্রতিমুহূর্তে ঘরের কাঁচা দেয়াল ধসে পড়ছে।

প্রতাপনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জাকির হোসেন বলেন, ‘আইলা, সিডরের মতো বড় বড় দুর্যোগ মোকাবিলা করেছি। কিন্তু এমন ভয়ানক দুর্যোগের মুখোমুখি আগে কখনও হইনি। দুর্গত মানুষগুলো আজ বেড়িবাঁধ সংস্কারের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে। হাজার হাজার মানুষ আজ বাঁধ রক্ষায় ঝাঁপিয়ে পড়েছে। ঈদের আনন্দ দূরের কথা, ঈদ কবে-কখন-কীভাবে চলে গেছে কেউ বলতেও পারে না।

শ্যামনগর ও আশাশুনি উপজেলার কয়েক হাজার চিংড়ি ঘের পানিতে ভেসে কোটি কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। জেলা প্রশাসনের তথ্যমতে, আম্পানে ১৭৬ কোটি টাকার চিংড়ি শিল্পের ক্ষতি হয়েছে। ১৩৭ কোটি টাকার ফসল নষ্ট হয়েছে। প্রাণিসম্পদের ক্ষতি হয়েছে ৭৭ কোটি টাকার।

সুত্র: সমকাল:


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: