শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ১১:০৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
কোটবাজারের পল্লী চিকিৎসক জামালকে দুদকে তলব ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কায় পটুয়াখালীতে ৯০০ আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত উখিয়া আ’লীগের সভাপতি-সম্পাদক ছাড়া কোন পদের বৈধতা নেই এবার দুর্গা এসেছেন ডাক্তারি অ্যাপ্রোনে করোনা বিনাশী রূপে পালংখালীতে কিশোরীকে অপহরণের চেষ্টা : ব্যর্থ হয়ে বসতবাড়ীতে তান্ডব, মালামাল লুট সেন্টমার্টিনে দূর্যোগে আটকা ৫ শতাধিক পর্যটক নিরাপত্তাহীনতায় প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দারা কক্সবাজারের পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে এবার কোটি টাকা চাঁদা দাবি’র অভিযোগ রোহিঙ্গা গণহত্যার স্বীকৃতি চেয়ে ৩৫ সংস্থার আহ্বান পেকুয়ায় যুবলীগ সম্পাদকসহ ব্যবসায়ীদের কান ধরে উঠবস করালেন এএসআই

৫ দিন ধরে নিখোঁজ মহেশখালীর গৃহবধূ, পালিয়ে আছেন স্বামীও

কক্সবাজার ভিশন ডটকম / ৮১ বার
আপডেট শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ১১:০৬ পূর্বাহ্ন

পাঁচদিন পরও মহেশখালী উপজেলার কালামারছড়ার উত্তর নলবিলা এলাকার নিখোঁজ গৃহবধূ আফরোজা বেগমের (২০) খোঁজ মেলেনি। একই সাথে ঘটনার পর থেকে পালিয়ে যাওয়া স্বামী রাকিব হাসান বাপ্পীও লাপাত্তা হয়ে আছেন।

পাঁচদিনেও আফরোজা বেগমের খোঁজ না পেয়ে তার মা-বাবা ও আত্মীয় স্বজনের মাঝে চরম উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। মেয়ের খোঁজ না পেয়ে মা ও বাবার কান্নায় আকাশ-বাতাস ভারি হয়ে উঠেছে।

আফরোজা বেগমের বড় ভাই মিজানুর রহমান জানান, উত্তর নলবিলা হাসান বশিরের ছেলে বদরখালী কলেজের প্রভাষক রাকিব হাসান বাপ্পীর সাথে হোয়ানক পুঁছড়ার মোঃ ইসহাকের মেয়ে আফরোজার পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। এটি দু’জনেরই দ্বিতীয় বিয়ে। এর মধ্যে আফরোজার স্বামী মারা যায় এবং হাসান প্রথম স্ত্রীকে তালাক দিয়েছিলেন।

মিজান জানান, রাকিব হাসান বাপ্পীর মা রোকেয়া হাসান গত ১২ অক্টোবর বিকালে আফরোজার বাবাকে ফোন করে জানান, আফরোজা নিখোঁজ হয়ে গেছে। বিষয়টি নিয়ে আফরোজার বাবার বাড়ির লোকজন তৎপর হয় এবং খোঁজাখুঁজি শুরু করে। কিন্তু তার খোঁজ পাওয়া যায়নি।

তার মতে, আফরোজার নিখোঁজের সাথে সাথেই পলাতক হয়ে যান স্বামী হাসান। বিষয়টি থানা পুলিশকে জানালে স্থানীয় কালারমারছড়া ফাঁড়ির দায়িত্বশীল পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলেও কার্যকর কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। শেষে থানার ওসির পরামর্শে বুধবার থানায় একটি নিখোঁজ ডাইরি করেন আফরোজার বাবা মোঃ ইসহাক।

থানায় করা ডাইরি সূত্রে জানা গেছে, বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই হাসান ও তার মা রোকেয়া হাসান গৃহবধূ আফরোজা আকতারের উপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন শুরু করেন। কয়েকবার অমানুষিক নির্যাতনে গুরুতর আহত হয়েছিল।

এই ঘটনায় আফরোজা আকতার বাদি হয়ে গত ১২ মার্চ আদালতে মামলা দায়ের করেছিলেন। কিন্তু মামলার পর দু’পক্ষের মীমাংসার ভিত্তিতে সংসার শুরু করে তারা। কিন্তু বাপের বাড়ি নিয়ে যাওয়ার কয়েকদিন পর থেকে আবারও আফরোজা আকতারকে নির্যাতন করে স্বামী হাসান ও শ্বাশুড়ি রোকেয়া হাসান।

আফরোজার বড় ভাই মিজান দাবি করেন, হাসানের প্রথম স্ত্রীর বাড়ি রাজবাড়ি। তাদের ওই সংসারে একটি মেয়ে রয়েছে। কলহের কারণে তাদের মধ্যে ডিভোর্স হয়। কিন্তু হাসান আফরোজাকে বিয়ে করার পর আবারও তালাক দেয়া প্রথম স্ত্রীর সাথে যোগাযোগ শুরু করে। তার (প্রথম স্ত্রী) ইন্ধনেই আফরোজাকে নির্যাতন করে বলে দাবি মিজানের। প্রথম স্ত্রীর সাথে যোগাযোগ হওয়ায় মূলত অশান্তি শুরু হয়। এমনকি তালাক দেয়া স্ত্রীর দেয়ার ইন্ধনেই আফরোজার নিখোঁজ ও কোনো অঘটন ঘটার আশঙ্কা রয়েছে।

এদিকে হাসানের মা সাবেক ইউপি সদস্য নানাজনের কথা বলে উল্টো আফরোজার বাবাসহ পরিবারের সদস্যদের নানা ধরণের হুমকি দিচ্ছেন। এমন কি আসল ঘটনা ভিন্নখাতে নিতে নানা অপতৎপরতা চালাচ্ছে।

আফরোজার পরিবারের আশঙ্কা, আফরোজার কোনো অঘটন ঘটেছে বা বিপদের মধ্যে রয়েছে। তা নাহলে কোনো ভাবেই তার খোঁজ মিলতো। আফরোজার পরিবার চরম উৎকণ্ঠায় রয়েছে। অজানা শঙ্কা তাদের মধ্যে ভর করছে। তারা বারবার বলছেন, স্বামী রাকিব হাসান বাপ্পীর মা রোকেয়া হাসানকে আটক করলে আসল তথ্য বেরিয়ে আসবে। তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য ওসির প্রতি আকুল আবেদন জানাচ্ছেন আফরোজার পরিবার।

এ ব্যাপারে মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি) আবদুল হাই বলেন, নিখোঁজ ওই গৃহবধূর খোঁজ পাওয়ার জন্য বিভিন্ন ভাবে চেষ্টা চালাচ্ছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: