মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০৩:৩৮ পূর্বাহ্ন

উখিয়ায় ২টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিরাজ করছে নৈরাজ্য!

শফিক আজাদ:: / ২১৭ বার
আপডেট মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০৩:৩৮ পূর্বাহ্ন
কুতুপালং লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প বাজার।

উখিয়ায় ২টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চরম নৈরাজ্যকর অবস্থা বিরাজ করছে। বিশেষ করে কুতুপালং ১/ ইষ্ট ও ২/ওয়েষ্ট ক্যাম্প জুড়ে সন্ত্রাসী হামলার ভয়ে সন্ধ্যা নামলেই শত শত রোহিঙ্গা দাম, খন্তি, লাটি সোটা নিয়ে ঘরে ছেড়ে রাস্তায় অবস্থান নিচ্ছে গতি কয়েকদিন যাবৎ। এদিকে গতি কয়েকদিনের ঘটনায় উখিয়া থানায় ২টি হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে। পুলিশ এসব ঘটনায় গতকাল একজনকে গ্রেপ্তার করছে।

মঙ্গলবার দুপুর ১২ টার দিকে কুতুপালং ১/ইষ্ট ও ২/ ওয়েষ্ট ক্যাম্পে দেখা যায় অন্যরকম চিত্র। এ দুই ক্যাম্পের মুল জংশন চার রাস্তার মোড়ের লম্বাশিয়া বড় বাজারটি বন্ধ থাকতে দেখা যায়।ওই বাজারের ৪/৫ শ দোকান পাট ও দৈনন্দিন বাজার বন্ধ রয়েছে। বাজার ও আশপাশের রাস্তায় কোন লোকজন উঠতে দিচ্ছে আইন শৃংখলা ও নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা। ঐ ক্যাম্প দুটোতে কার্যত অস্বাভাবিক অবস্থা বিরাজ করছে। অনান্য দিনের মতো বিভিন্ন দেশী-বিদেশী সেবা সংস্থার লোকজনও দেখা যায় নি।

ক্যাম্প ২/ওয়েষ্টের একটু ভিতরে তাবলীগ জামায়াতের একটি মসজিদ। যেটিকে রোহিঙ্গারা মারকজ নামে চিনে। মরকজের ভিতর ও বাইরে কয়েকশত নারী,শিশু ও পুরুষের জটলা। একটা সন্তানের মা রমিদা, সে সোমবার ৬ নং ক্যাম্প থেকে এখানে এসে আশ্রয় নিয়েছে। সে জানায় তার স্বামীকে সোমবার দুপুরে আসা সন্ত্রাসীরা অস্ত্রের মুখে তোলে নিয়ে গেছে।
জমিদার মতো অন্তত শ’ খানেক মহিলা জানায় তারাও বিভিন্ন ক্যাম্প থেকে জান মাইলের নিরাপত্তার অভাবে মরকজে এসে আশ্রয় নিয়েছে। আবুল কালাম (৫০) একটা রোহিঙ্গা জানায় সে ও তার মতো শতাধিক রোহিঙ্গা আসা সন্ত্রাসীর ভয়ে এখানে আশ্রয় নিয়েছে। এদের কারও ছেলে, স্বামী, ভাইকে সন্ত্রাসীরা তোলে নিয়ে গেছে। তন্মধ্যে কাউকে মোটা অংকের মুক্তিপণের বিনিময়ে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হলেও অনেকের কোন খোঁজ মিলছে না বলে জানায়।
লম্বাশিয়া বাজারে দায়িত্বরত এপিবিএনের এএসআই আবদুর রহমান জানালেন, এলেন একটা ভয়ংকর অবস্হা। আশপাশের রোহিঙ্গা পুরুষরা সন্ধ্যার পরে থেকে ভোর পর্যন্ত রাস্তায় জটলা বেঁধে অবস্থান নেয়। কখন কারা কাদের ওপর হামলা চালায় বলা যায় না।

২/ওয়েষ্ট ক্যাম্পের রোহিঙ্গা মাহমুদউল্লাহ জানান,বিভিন্ন ক্যাম্পে আসা সন্ত্রাসীদের নির্যাতনের শিকার হয়ে নিরাপত্তার অভাবে মরকজে এসে আশ্রয় নিয়েছে। মারকজে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের তুলে নিতে সন্ত্রাসীরা বারবার হামলা করছে। মাঝে মধ্যে নিরীহ রোহিঙ্গারা প্রতিরোধ করে। কিন্তু আসা সন্ত্রাসীদের ধারণা এদের আশ্রয় ও প্রতিরোধ করাচ্ছে মাহমুদউল্লাহর ভাই মাষ্টার মুন্না। জানা গেছে, মাষ্টার মুন্না ইতিপূর্বে আসার সক্রিয় সদস্য ছিল। তাদের মধ্যে অন্তধন্ধের কারণে মুন্না আলাদা গ্রুপ সৃষ্টি করে।

কুতুপালং এপিবিএন ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক সালে আহমেদ পাঠানও একই কথা জানান। তিনি বলেন,পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সার্বক্ষনিক তৎপর রয়েছে এপিবিএন সদস্যরা। গত দুইদিনের ঘটনায় ইতিমধ্যে উখিয়া থানায় ২ টিকে হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে। সোমবার দুপুরে পুরাতন নিবন্ধিত ক্যাম্পের মৃত ইব্রাহিমের ছেলে জিয়াউর রহমান (২০) করে একটি হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

অন্যদিকে র‌্যাব-১৫ এর কক্সবাজার-ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মেজর মেহেদী হাসান জানান, কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গোলাগুলি ঘটনা দুদিন আগে র‌্যাব সন্ত্রাসীদের ধাওয়া দেয়। এক পর্যায়ে তারা কুতুপালং ছেড়ে হোয়াইক্যং ইউনিয়নের চাকমার কুল -২১ নং ক্যাম্প সংলগ্ন পাহাড়ে অবস্হান নেয়। গোপন সূত্রে তাদের অবস্হান নিশ্চিত হয়ে সোমবার অভিযান চালায় র‌্যাব।

অভিযান কালে রশিদ আহমদ (৩২), ছলিমুল্লাহ (৫৫), শফিক আলম (২০), আব্দুল হামিদ (২০), মো: সাবের (৩২), মো: ছালাম (৫০), ইসমাইল (২৫) হারুনুর রশিদ (২৮) ও ফয়েজ (২২) । আটকৃত সবাই উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা। তাদের কাছ থেকে দেশে তৈরি চারটি অস্ত্র, ২০ রাউন্ড কার্তুজ, কিরিচ উদ্ধার করা হয়েছে।

উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আহমেদ সঞ্জুর মোরশেদ বলেন, ক্যাম্পের সংঘটিত ঘটনায় ৪টি মামলা হয়েছে। দিনের বেলায় পরিস্হিতি ক্যাম্পে স্বাভাবিক থাকলেও রাতে কিছুটা আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। তবে সব মিলিয়ে পরিবেশ অনূকূলে রয়েছে৷

উল্লেখিত ২টি ক্যাম্পসহ ৫টি ক্যাম্পের প্রশাসনিক দায়িত্বে নিয়োজিত উপর সচিব মোঃ খলিলুর রহমান খান বলেন,মূলত রোহিঙ্গাদের ভাষায় আরসা ও মুন্না গ্রুপের মধ্যে ইয়াবা ব্যবসা,লোকজন অপহরণ করে নিয়ে গিয়ে মুক্তিপণ আদায়,চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে বেশ কয়েকদিন ধরে ধন্দ্ব, হামলা পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: