বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ০১:৫১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
সরওয়ার জাহান চৌধুরী অন্ধকারাচ্ছন্ন সমাজে এক আলোর মশাল রোহিঙ্গা সংকট: জাতিসংঘে মিয়ানমারের ‘মিথ্যাচারে’ ক্ষুব্ধ বাংলাদেশ কর্মক্ষেত্রে সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন উখিয়ার নবাগত ইউএনও নিজাম উদ্দিন আহমেদ ঘুমধুম ইউনিয়নে সীমানা বিরোধ নিয়ে মিথ্যা সংবাদ এর প্রতিবাদ একটার পর একটা ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে, বিচার হচ্ছে না: নুর বাইশারীতে বিট পুলিশিং কার্যালয়ের শুভ উদ্বোধন ও মত বিনিময় সভা বর্তমান সরকারের আমলেই সব ক্ষেত্রে নারীর মর্যাদা বেড়েছে-অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী কমিউনিটি পুলিশ বাদ নয়, চালু হচ্ছে ইউনিয়ন পর্যায়ে ‘বিট পুলিশিং’ কার্যক্রম পালংখালীর ক্ষতিগ্রস্ত ১৬৯ পরিবারে কোস্ট ট্রাস্টের এককালীন অনুদান যানজটের শেষ নেই উখিয়ায়

ক্যাম্পে ফিরে সুর পাল্টালেন ‌ভাসানচর ফেরত রোহিঙ্গা নেতারা

বাংলাট্রিবিউন: / ২১৫ বার
আপডেট বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ০১:৫১ পূর্বাহ্ন

নোয়াখালীর হাতিয়ার ভাসানচর বসবাসের উপযোগী কিনা, তা দেখে মঙ্গলবার (৮ সেপ্টেম্বর) রাতে কক্সবাজারের শরণার্থী শিবিরে পৌঁছেছেন রোহিঙ্গা নেতারা। এসব নেতা ভাসানচরে অবস্থানকালে সেখানকার অবকাঠামো নিয়ে প্রশংসা করলেও ক্যাম্পে ফেরার পর তাদের কণ্ঠে অন্য সুর শোনা গেছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন রোহিঙ্গা নেতা বলেছেন, ভাসানচর ভালো লেগেছে। তবে দীর্ঘ বসবাসের উপযোগী কিনা বিষয়টি ভেবে দেখতে হবে।

এর আগে, সকাল সাড়ে ৯টার দিকে নৌবাহিনীর জাহাজে করে চট্টগ্রামে পৌঁছান রোহিঙ্গা নেতারা। সেখান থেকে সেনাবাহিনীর নিরাপত্তায় রাতে তারা ক্যাম্পে পৌঁছান।

সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, সেনাবাহিনীর মধ্যস্থতায় (৫ সেপ্টেম্বর) গত শনিবার টেকনাফ থেকে ভাসানচরে যান রোহিঙ্গাদের ৪০ জন প্রতিনিধি। তাদের জন্য বাংলাদেশ সরকার ভাসানচরে কী ধরনের ব্যবস্থা রেখেছে তা বর্ণনা করা হয়। এরপর তাদের (রবিবার ও সোমবার) দুই দিন পুরো আবাসন প্রকল্পের অবকাঠামো ঘুরিয়ে দেখানো হয়েছে। এ সময় তাদের সঙ্গে নৌবাহিনী, পুলিশসহ আরআরআরসি কার্যালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সরকার ঘিঞ্জি শরণার্থী শিবির থেকে কমপক্ষে এক লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে মেঘনা নদী ও বঙ্গোপসাগরের মোহনায় জেগে ওঠা ওই দ্বীপে পাঠানোর অংশ হিসেবে এই উদ্যোগ নেয়।
ভাসানচর দেখে মঙ্গলবার রাত ৭টার দিকে উখিয়া কুতুপালং রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে পৌঁছান নারী নেত্রী জামালিদা বেগম। তিনি বলেন, ‘ক্যাম্পে পৌঁছার সঙ্গে সঙ্গে লোকজন জানতে চেয়েছে ভাসানচর দেখতে কেমন? জবাবে ভাসানচরের অবকাঠামো এবং সুন্দর পরিবেশ সম্পর্কে তাদের জানিয়েছি। তবে তারা বারবার বিষয়টি পরিষ্কার করে জানতে চেয়েছিল। আমরা যা দেখেছি তা বলেছি। সেখানে শনিবারে পৌঁছালেও রবিবার ও সোমবার ঘুরে দেখেছি। একপর্যায়ে সেখানে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের সঙ্গে দেখা হয়েছিল। এ সময় বেশিরভাগ রোহিঙ্গা নারী কান্নাকাটি করেছেন। তারা স্বজনদের জন্য কান্নাকাটি করছিল। সরকারের কাছে আমার দাবি থাকবে, সেখানে থাকা রোহিঙ্গাদের স্বজনদেরও যেন সেখানে পাঠানো হয়। মাত্র আমরা ক্যাম্পে পৌঁছেছি। বুধবার সকাল থেকে ভাসানচরের বিষয়ে ক্যাম্পে গুরুত্ব সহকারে প্রচারণা চালানো হবে।’

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভাসানচর ফেরা এক রোহিঙ্গা নেতা বলেন, ‘কক্সবাজারের ঘিঞ্জি শিবির ও পাহাড়ের পাদদেশে বসতির চেয়ে ভাসানচর উন্নত হবে, সেটি বলা মুশকিল। হয়তো বা এখানকার ঝুপড়ি ঘরের চেয়ে সেখানে গড়ে ওঠা থাকার ঘরসহ অন্যান্য অবকাঠামোগুলো মজবুত ও সুন্দর। সেই হিসাবে যদি বলি, ভাসানচর অনেক ভালো লেগেছে। তবে দীর্ঘ বসবাসের উপযোগী কিনা, বিষয়টি ভেবে দেখতে হবে। তাছাড়া সাগরের মাঝখানে জেগে ওঠা ভাসানচরে পৌঁছাতে দুর্গম পথ পাড়ি দিতে হয়।’
এর আগে, পরিদর্শনে যাওয়া রোহিঙ্গা নেতারা ভাসানচর থেকে বলেছিলেন, ‘অবকাঠামো এবং সুন্দর পরিবেশ বিষয়ে ক্যাম্পের রোহিঙ্গাদের জানানো হবে। আমাদের চেষ্টা থাকবে, অন্তত প্রতিটি ক্যাম্প থেকে যেন স্বেচ্ছায় কিছু পরিবার ভাসানচরে যেতে রাজি হয়।’

সেখানকার খাদ্য গুদাম, থাকার ঘর, আশ্রয় সেন্টার, মসজিদ, স্বাস্থ্যকেন্দ্র, স্কুল, খেলার মাঠ ও কবরস্থানসহ মাছ চাষের পুকুর পরিদর্শন করেন রোহিঙ্গা নেতারা। এছাড়া সেখানে বিভিন্ন প্রকারের সবজির বাগান এবং সাগরের তীরে কেওড়া বাগান দেখে তারা মুগ্ধ হয়েছিলেন। ফেরার আগের দিন (সোমবার) সন্ধ্যায় তাদের ব্রিফিং করা হয়। যাতে ভাসানচরে যা যা দেখছেন তা যেন সঠিকভাবে ক্যাম্পে ফিরে অন্যদের জানাতে পারেন।

তবে ফেরার পর (মঙ্গলবার) তাদের অনেকের কাছে মতামত জানতে চাওয়া হলে তারা এড়িয়ে যান, আবার অনেকের মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

এ প্রসঙ্গে অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (আরআরআরসি) মোহাম্মদ সামসুদ্দৌজা নয়ন বলেন, ‘ভাসানচর থেকে রোহিঙ্গাদের প্রতিনিধি দল ফিরে এসেছে। তারা নিজ নিজ ক্যাম্পে পৌঁছে ভাসানচরে যা দেখেছেন সেটি রোহিঙ্গাদের মধ্যে তুলে ধরবেন। ভাসানচর প্রতিনিধি দলের ভালো লেগেছে। আমাদের বিশ্বাস ভাসানচরে যেতে রাজি করাতে ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের তারা বোঝাতে সক্ষম হবে।’

প্রসঙ্গত, রোহিঙ্গা স্থানান্তরের জন্য নিজস্ব তহবিল থেকে দুই হাজার ৩১২ কোটি টাকা ব্যয়ে ভাসানচরে আশ্রয়ণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে সরকার। জোয়ার ও জলোচ্ছ্বাস থেকে সেখানকার ৪০ বর্গকিলোমিটার এলাকা রক্ষা করতে ১৩ কিলোমিটার দীর্ঘ বাঁধ এবং এক লাখ রোহিঙ্গা বসবাসের উপযোগী ১২০টি গুচ্ছগ্রামের অবকাঠামো তৈরি করা হয়েছে। গত বছরের ডিসেম্বরে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের এক সভায় ভাসানচরের জন্য নেওয়া প্রকল্পের খরচ ৭৮৩ কোটি টাকা বাড়িয়ে তিন হাজার ৯৫ কোটি টাকা করা হয়। বাড়তি টাকা বাঁধের উচ্চতা ১০ ফুট থেকে বাড়িয়ে ১৯ ফুট করা, অন্যান্য সুবিধা বৃদ্ধিসহ জাতিসংঘের প্রতিনিধিদের জন্য ভবন ও জেটি নির্মাণে খরচ হবে বলে জানা গেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: