মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
পিতার স্থানে হেলাল উদ্দিন রাজাপালং ৯নং ওয়ার্ডের উপ-নির্বাচনে ২০৯৮ ভোট পেয়ে হেলাল উদ্দিন বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত রাস্তা থেকে তুলে চরে নিয়ে কলেজছাত্রীকে গণধর্ষণ ১১ দফা দাবিতে ধর্মঘটে পণ্যবাহী নৌযান শ্রমিকরা জনমত জরীপে এগিয়ে মোরগ মার্কার হেলাল উদ্দিন রাজাপালং ৯নং ওয়ার্ডের উপ-নির্বাচনের মোরগ মার্কার প্রার্থী হেলাল উদ্দীনের খোলা চিঠি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনে কেন্দ্রে প্রশাসনের নিরাপত্তা জোরদার উখিয়ায় আমিন এন্টারপ্রাইজ অনলাইন শপের উদ্বোধন নাইক্ষ্যংছড়িতে বীর বাহাদুর ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শিক্ষা ও ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ উখিয়ায় সড়কে দীর্ঘ যানজট : ভোগান্তিতে যাত্রীরা

সিনহা হত্যা: ওসি প্রদীপসহ তিন আসামি জবানবন্দি দিতে নারাজ

সমকাল:: / ১৬০ বার
আপডেট মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৫৮ অপরাহ্ন

ওসি প্রদীপসহ তিন আসামি জবানবন্দি দিতে নারাজ তৃতীয় দফা রিমান্ড শুনানির জন্য ওসি প্রদীপ, লিয়াকত ও নন্দ দুলালকে শুক্রবার আদালতে হাজির করা হয়।

সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলায় টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, পরিদর্শক লিয়াকত আলী ও এসআই নন্দ দুলাল রক্ষিতকে তৃতীয় দফায় তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। দ্বিতীয় দফায় চার দিনের রিমান্ড শেষে গতকাল শুক্রবার বিকেল ৩টার দিকে তাদের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট টেকনাফ-৩ আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় মামলার অধিকতর তদন্তের স্বার্থে চার দিনের রিমান্ড আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা। শুনানি শেষে বিচারক তামান্না ফারাহ তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। পরে বিকেল সোয়া ৪টার দিকে আসামিদের র‌্যাব-১৫ কক্সবাজার কার্যালয়ে নেওয়া হয়।

একটি সূত্র জানিয়েছে, এরই মধ্যে দ্বিতীয় দফায় ১১ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলেও প্রদীপসহ প্রধান তিন আসামি এখনও স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে রাজি হচ্ছেন না। তারা একেক সময় একেক কথা বলছেন। কিছু প্রশ্নের জবাবে তারা কৌশলী উত্তর দিচ্ছেন। কিছু প্রশ্নের উত্তর দিতে তারা দীর্ঘ সময়ও নিচ্ছেন। বিশেষ করে লিয়াকত গুলির কারণ নিয়ে এরই মধ্যে তিন ধরনের ব্যাখ্যা দিয়েছেন।

জানা গেছে, এরই মধ্যে সিনহা হত্যা মামলায় এপিবিএনের যে তিন সদস্য জবানবন্দি দিয়েছেন তাদের বক্তব্যে ঘটনার সময় লিয়াকত ও এসআই নন্দ দুলালের ভূমিকার বিষয় উঠে আসে। তিনজনই বলেছেন, সিনহার ঘটনা প্রতিহত করার মতো অবস্থা তাদের ছিল না। চোখের সামনে যা দেখেছেন, তা-ই জবানবন্দিতে তুলে ধরেছেন এপিবিএনের তিন সদস্য।

এদিকে তদন্ত কার্যক্রম তদারক ও প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দিতে কয়েকদিন ধরে কক্সবাজারে অবস্থান করছেন র‌্যাব মহাপরিচালক চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন। এরই মধ্যে মাঠ পর্যায়ের সদস্যদের সঙ্গে একাধিক বৈঠকও করেছেন তিনি।

এদিকে আসামিদের ফের রিমান্ডের বিরোধিতা করে জামিন আবেদন করেন চট্টগ্রাম থেকে আসা একদল আইনজীবী। বিচারক তাদের আবেদন নাকচ করে দেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২৪ আগস্ট ওসি প্রদীপসহ সাত পুলিশের দ্বিতীয় দফায় চার দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছিলেন একই আদালত। তার আগে আসামিদের সাত দিনের রিমান্ড শেষ হয়।

শুক্রবার বিকেলে ওসি প্রদীপসহ তিন আসামিকে আদালতে তুলে রিমান্ড আবেদন করা হলে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা এর বিরোধিতা করেন। আসামিপক্ষের আইনজীবী দলের প্রধান আহসানুল হক হেনা সাংবাদিকদের বলেন, আইন মতে, একটি মামলায় একজন আসামিকে সর্বোচ্চ ১৫ দিন রিমান্ডে নেওয়া যায়। তার মক্কেল প্রদীপ কুমারসহ অন্যদের ৬ আগস্ট থেকে ২২ দিন ধরে র‌্যাব হেফাজতে রাখা হয়েছে। এরপর আজ তৃতীয় দফায় আবারও তিন দিন রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়েছে। সিআরপিসিতে স্পষ্ট বলা আছে, সর্বোচ্চ ১৫ দিন পর্যন্ত পুলিশ কাস্টডিতে রাখা যাবে। তারা শিগগির উচ্চ আদালতের শরণাপন্ন হবেন।

আহসানুল হক আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, ইতোমধ্যে দুই দফায় ১১ দিন রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতন করে ওসি প্রদীপের হাত-পা ভেঙে দেওয়া হয়েছে। তাই তৃতীয় দফায় রিমান্ডের প্রয়োজন নেই।

এ সময় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা নির্যাতনের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে আদালতকে বলেন, রিমান্ডে নিয়ে প্রদীপের হাত-পা ভেঙে দিলে তিনি আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে আছেন কীভাবে?

আদালতে যুক্তিতর্ক উপস্থাপনকালে আসামিপক্ষের এ আইনজীবী বলেন, সিনহাকে ওসি প্রদীপ গুলি করেননি। ঘটনার সময় ওসি প্রদীপ ৩২ কিলোমিটার দূরে থানায় অবস্থান করছিলেন। ঘটনা শুনে ওসি প্রদীপ ঘটনাস্থলে না গেলে তো বলা হতো যে, তিনি দায়িত্ব পালন করেননি।

গত ৩১ জুলাই রাতে টেকনাফে পুলিশের গুলিতে নিহত হন মেজর (অব.) সিনহা। ৫ আগস্ট কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হত্যা মামলা করেন সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস। এতে প্রদীপসহ পুলিশের ৯ জনকে আসামি করা হয়। মামলায় এ পর্যন্ত পুলিশের সাতজন, এপিবিএনের তিনজন এবং স্থানীয় তিন বাসিন্দা গ্রেপ্তার হয়েছেন।

© সমকাল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: